শিরোনাম :
সেনবাগে কাবিলপুর একতা সমাজ সংঘের উদ্দ্যোগে ইফতার পার্টি ও ঈদ বস্র উপহার বিতরণ সেনবাগে সৈয়দ হারুন ফাউন্ডেশনের পক্ষ হতে ৪০০ পরিবারকে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ সেনবাগে সেলিম উদ্দিন কাজল এর উদ্দ্যোগে দেশবাসীর জন্য দোয়াও মেজবানী অনুষ্ঠিত সেনবাগে কাবিলমিয়া ফাউন্ডেশনের উদ্দ্যোগে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ সেনবাগে অসহায় গরীবের মাঝে প্যানেল চেয়ারম্যান স্বপনের ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ ফরিদপুর জেলা পুলিশের প্রেস ব্রিফিং অনুষ্ঠিত মীনার স্বপ্নপূরণের সহযাত্রী ফরিদপুর জেলা প্রশাসন বৃহত্তর গোয়ালচামট বাসীর পক্ষ থেকে শান্তিনিবাসে ইফতার বিতরণ সেনবাগে পৌরমেয়র প্রার্থী সাইফুল ইসলাম বাবুর করোনাকালীন খাদ্য সামগ্রী বিতরণ সচেতনতা মুলক স্টিকার ও মাস্ক বিতরণ করলো জনপ্রিয় সেচ্ছাসেবী সংঘঠন ত্রিশাল হেল্পলাইন
নোটিশ :
Wellcome to our website...

ইউএনও মাসুম রেজার নেতৃত্বে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা-একটি প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

প্রথমসংবাদ ডেক্স : / ৪৪ বার
আপডেটের সময় : বুধবার, ১০ মার্চ, ২০২১

ফরিদপুর জেলা প্রতিনিধিঃঃ ফরিদপুর শহরে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান পরিচালনা করে বিভিন্ন অনিয়মের কারণে তিতুমীর বাজারের একটি প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা করেছে। সদর উপজেলার নির্বাহী অফিসার মোঃ মাসুম রেজার নেতৃত্বে গত বুধবার ১১টার দিকে শহরের ফলপট্টিতে উপজেলা প্রশাসন, বিএসটিআই, ফরিদপুর এবং জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, ফরিদপুর কর্তৃক যৌথ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

অভিযানে ওজন পরিমাপক যন্ত্রে বিএসটিআই কর্তৃক ভেরিফিকেশন সনদ গ্রহণ না করায় ওজন ও পরিমাপ মানদন্ড আইন ২০১৮ মোতাবেক একটি প্রতিষ্ঠানকে ৭,০০০/- (সাত হাজার) টাকা জরিমানা আরোপ ও আদায় করা হয়।

এসময় সহকারী পরিচালক, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, ফরিদপুর, পরিদর্শক, বিএসটিআই, ফরিদপুর এবং ফরিদপুর জেলা পুলিশের ১টি চৌকস টিম উপস্থিত থেকে অভিযানে সহযোগিতা করেন।

ইউএনও মোঃ মাসুম রেজা জানান, সম্প্রতি শহরের বিভিন্ন স্থান থেকে ফলফলাদি সহ খাদ্যের মান ও মুল্য নিয়ে গোপন সূত্রে বেশ কিছু অভিযোগ এসেছে। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে আমরা অভিযান পরিচালনা করি। বর্তমানে পণ্যের যে বাজার মুল্য/ক্রয় মুল্য এবং পরিমাপ সহ বিক্রয়মুল্য তা খুবই অসামঞ্জস্যপুর্ন।

দোকান গুলোতে খুবই অধিকমুল্যে ফলফলাদি ও খাদ্যদ্রব্য বিক্রয় করা হচ্ছে, তাছাড়া ক্রয় বিক্রয়ের মান কতটা উন্নত এবং পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার বিষয়টিও আমরা গুরুত্বের সাথে দেখছি।

তিনি আরো বলেন, যে সকল প্রতিষ্ঠান খাদ্য দ্রব্যাদি মজুদ ও অতিরিক্ত বিক্রয় করে তাদের লাইসেন্স, বিএসটিআই অনুমোদিত ডিসপেন্সিং মেশিন থাকতে হবে। অন্যথায় প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হতে পারে। জনগণের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করতে আমরা এ ধরনের প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করবো।


এ জাতীয় আরো সংবাদ