শিরোনাম :
সেনবাগে সৈয়দ হারুন ফাউন্ডেশনের পক্ষ হতে ৪০০ পরিবারকে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ সেনবাগে সেলিম উদ্দিন কাজল এর উদ্দ্যোগে দেশবাসীর জন্য দোয়াও মেজবানী অনুষ্ঠিত সেনবাগে কাবিলমিয়া ফাউন্ডেশনের উদ্দ্যোগে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ সেনবাগে অসহায় গরীবের মাঝে প্যানেল চেয়ারম্যান স্বপনের ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ ফরিদপুর জেলা পুলিশের প্রেস ব্রিফিং অনুষ্ঠিত মীনার স্বপ্নপূরণের সহযাত্রী ফরিদপুর জেলা প্রশাসন বৃহত্তর গোয়ালচামট বাসীর পক্ষ থেকে শান্তিনিবাসে ইফতার বিতরণ সেনবাগে পৌরমেয়র প্রার্থী সাইফুল ইসলাম বাবুর করোনাকালীন খাদ্য সামগ্রী বিতরণ সচেতনতা মুলক স্টিকার ও মাস্ক বিতরণ করলো জনপ্রিয় সেচ্ছাসেবী সংঘঠন ত্রিশাল হেল্পলাইন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ নেতা কায়েসের ঈদ উপহার
নোটিশ :
Wellcome to our website...

এএসপি দিদারের বিসিএস জয়ের গল্প

প্রথমসংবাদ ডেক্স : / ২৫৯ বার
আপডেটের সময় : সোমবার, ৩ জুন, ২০১৯

মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞানও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োটেকনোলজি অ্যান্ড জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী মো. দিদারুল ইসলাম। তিনি ৩৭তম বিসিএসে পুলিশ ক্যাডারে ৮ম স্থান অধিকার করেছেন। তার বিসিএস জয়ের গল্প শোনাচ্ছেন এম এম মুজাহিদ উদ্দীন—

ছেলেবেলা: মো. দিদারুল ইসলাম বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের স্মৃতি বিজড়িত ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলায় জন্মগ্রহণ করেন। বাবা মরহুম মো. নুরুল ইসলাম ছিলেন সরকারি চাকরিজীবী। মা মাহমুদা খাতুন একজন গৃহিণী। ছেলেবেলায় দস্যিপনা ছিল তার নিত্যসঙ্গী।

পড়াশোনা: দিদার ৫ম শ্রেণিতে পেয়েছেন সরকারি বৃত্তি। কিন্তু কখনো প্রথম সারির ছাত্র হয়ে উঠতে পারেননি। ইসলামি একাডেমি স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগে মাধ্যমিক পরীক্ষায় জিপিএ ৪.৩১ পেয়ে উত্তীর্ণ হন। তারপর শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় জিপিএ ৪.৩০ পান। প্রথম সারির শিক্ষার্থী না হলেও অন্য দশজন শিক্ষার্থীর মতো স্বপ্ন দেখেন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে পড়ার। কিন্তু শেষে ভর্তির সুযোগ পান মওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে।

didar-in

অনুরাগ: বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় সাহিত্যের প্রতি দিদারের অনুরাগ ছিল। রবীন্দ্রনাথ, শেক্সপিয়র, শরৎ চন্দ্র, কাজী নজরুলের রচনাবলী পড়েছেন। আর্থার কোনান ডয়েলের ‘শার্লক হোমস সিরিজ’ পড়ে পুলিশ অফিসার হওয়ার স্বপ্ন দেখেছেন।

বিসিএস প্রস্তুতি: সম্মান ৪র্থ বর্ষ থেকেই বিসিএসের জন্য প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করেন দিদার। বিসিএসের সিলেবাস অনুসারে বিভিন্ন ধরনের বই পড়তেন। নিজে হ্যান্ডনোট তৈরি করে তা অনুসরণ করতেন। বাংলাপিডিয়া, বাংলাদেশের ইতিহাসভিত্তিক বই, মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক বই বেশি বেশি পড়তেন। ঘুমানোর আগে পরের দিনের জন্য লক্ষ্য নির্ধারণ করতেন, আর তা বাস্তবায়নও করতেন। জাতীয় দৈনিক পত্রিকা পড়ার অভ্যাস ছিল তার। ইংরেজি ও গণিতের প্রতি বাড়তি সময় দিতেন।

অনুপ্রেরণা: সাফল্য সম্পর্কে দিদার বলেন, ‘আমার সবচেয়ে বড় অনুপ্রেরণা আমার বাবা। বিসিএসের প্রস্তুতি নেওয়ার সময় বাবার কথা মনে করে উদ্যম নিয়ে পড়তাম।’ এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন সহশিক্ষা কার্যক্রমের সাথে জড়িত ছিলেন। এসবই তার বিসিএস পরীক্ষার ভাইভায় কাজে লেগেছে।

didar-in

পরামর্শ: লক্ষ্য স্থির রেখে চেষ্টা চালিয়ে গেলে সাফল্য আসবে বলে দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করেন দিদার। যারা বিসিএস পরীক্ষা দিয়েও সাফল্যের মুখ দেখছে না তাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘কখনো হতাশ হওয়া যাবে না। আত্মবিশ্বাস রেখে সামর্থের সবটুকু দিয়ে চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে। নিজের দুর্বল ও সবল দিকগুলো খুঁজে বের করতে হবে। সে অনুযায়ী প্রস্তুতি নিতে হবে। প্রস্তুতির সময় পড়ালেখার বাইরে মনযোগ দেওয়া যাবে না। মেধা, মনন ও পরিশ্রম কখনোই বৃথা যায় না। একদিন না একদিন তা সাফল্যের মুখ দেখবেই।’


এ জাতীয় আরো সংবাদ